মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৩

শিমু আপুর হাল্কা কটনের প্রিন্ট করা নাইটি


সময়টা ২০০১ এর শীতের কিছুদিন আগে। মা বাবা যাবে সিলেটে ঘুরতে। আমার যাওয়া হবেনা, সামনে ভার্সিটির সেমিস্টার ফাইনাল। ঘুরতে যেতে আমার খুব ভালো লাগে, তাই একটু মন খারাপ লাগছিলো। মনে হচ্ছিলো এই পড়াশুনার জন্য আর কত স্যাক্রীফাইস করতে হবে কে জানে? কিন্তু ছাড়তেওতো পারিনা ভবিষ্যতের কথা ভেবে।
আমরা থাকি খুলনাতে। ফ্ল্যাটটা বাবা কিনেছিলেন। যিনি বাড়িটা তৈরি করেছিলেন, তিনি নিজে থাকবেন বলে একটা মাঝে উঠোনের চারদিক দিয়ে তিন তলা বিল্ডিং তৈরি করে পরে টাকার অভাবে বিক্রি করে দেন কিছু পোরশন। নিজে থাকেন নিচতলা। আর আমরা ছাড়া আর একটা খুলনার একটা ফ্যামিলি থাকি দুই আর তিন তলাতে।
বাবা মার যাবার সময় এসে গেলো। আমি ওদের ট্রেনে উঠিয়ে দিয়ে এলাম। বাড়ি ওয়ালার ফ্যামিলীর সাথে আমাদের খুব ভালো সম্পর্ক। ওনার ওয়াইফ আমাকে তার নিজের ছেলের মতো ভালবাসেন। ওদের কোন ছেলে মেয়ে নেই। ওনার ওয়াইফ আর ছোট বোন। আমার এই কদিনের খাওয়া দাওয়ার ব্যাবস্থা বাড়ি ওয়ালার বাসাতেই।
আমি ফিরে এসে খেতে বসবো এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো। গিয়ে খুলে দেখি বাড়ি ওয়ালার বোন দাড়িয়ে। হাতে একটা প্লেট ঢাকা। বলল ভাবি তোর জন্য পাঠিয়ে দিয়েছে, খেয়ে নিস। ঢাকনা সরিয়ে দেখি ভাত, সবজি, ডাল আর মুরগির ঝাল ফ্র্যাই।  বাড়ি ওয়ালার বোনের নাম শিমু। শিমুর এজ ৩০+ । সি.এ পাস করে এখন একটা মালটিন্যাশনাল কোম্পানিতে  রিজিওনাল একাউন্ট ম্যানেজার হিসাবে কাজ করছে।
দেখতে বেশ দারুন। হাইট প্রায় সাড়ে ৫ ফিট। ফর্সা বাট হাল্কা মোটা হয়েছে তাই একটু তুলতুলেও লাগে। ফিগার ৩৫-৩২-৩৭। রেগুলার পার্লারে যায় তাই চেহারায় একটা অন্যরকম টোন আছে। এলাকায় ছেলেরা শুধু না অনেক বিবাহিত লোকও ওর জন্য পাগল। আমি প্রথমে শিমুকে আনটি বলে ডাকতাম। কিন্তু উনি আমাকে আপু বলে ডাকতে বলেন। আমি শিমু আপুকে থ্যাংকস জানিয়ে দরজা বন্ধ করবো ভাবছি, তখন দেখি শিমু আপু হাসি হাসি মুখে আমার দিকে তাকিয়ে একটু ঘরের দিকে উকি মারার চেষ্টা করছে। আমি ব্যাপারটা বোঝার জন্য ওর মুখের দিকে কৌতুহল ভরে তাকালাম।
শিমু আপু বললঃ বেশ ভালোইতো আছিস, খুব এনজয় করবি এই কদিন, তাইনা?
আমি একটু বোকা বোকা ভাব নিয়ে অবাক হয়ে বললামঃ কেন, এতে এনজয় করার কি আছে?
আপুঃ কেন আবার, ১৪ দিন একা থাকবি, ড্রিংক করবি, বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা মারবি, মজা করবি সেটা এনজয়মেনট না? তাছাড়া কাল শুক্রবার তাই আজতো পার্টি নাইট তাইনা?
আমি বললামঃ না না তেমন কিছু না, এই এখন খেয়ে দেয়ে একটু টিভি দেখে তারপর ঘুম দেব। তারপর কাল উঠে বাজার করে একটু আড্ডা মারব। বিকেলের কোন প্ল্যান নেই।
আপু বললঃ বাহ, তবে তুই তো ভালো ছেলে। আমরা যখন এই রকম সুযোগ পেতাম তখন সব মেয়েরা একসাথে হয়ে যা যা করতাম তা তোরা আন্দাজও করতে পারবি না।
তুই ভালো ছেলে, যা খেয়ে দেয়ে শুয়ে পড়। কাল দেখা হবে। এই বলে শিমু আপু নিচে চলে গেলো। আমি খেতে খেতে আমাদের কথাবার্তা গুলো ভাবতে লাগলাম......যা যা করতাম তা তোরা আন্দাজও করতে পারবি না।
যাই হোক, খাওয়া শেষ করে লাইট অফ করে শুয়ে টিভি দেখতে একবার শিমু আপুর মোবাইল-এ কল দিই, তারপর আবার ভাব্লাম কি জানি কি ভাববে, তাই ছেড়ে দিলাম। একটু পর একটা এসএমএস করলাম গুড নাইট বলে শিমু আপুকে।
তারপর শুয়ে পড়লাম। কিন্তু ঘুম আসছিল না। এইভাবে প্রায় ৩০ মিনিট কেটে গেছে, হঠাৎ মোবাইলটা বেজে উঠলো। দেখি শিমু আপু ফোন করেছে। রিসিভ করতেই শিমু আপু বলল, “কিরে, কি করিস? ঘুম আসছে না নাকি?” শিমু আপুর গলাটা কেমন যেন অন্য রকম লাগলো। আমিও বললাম, “না আপু, ঘুম আসছেনা।তারপর একটু ফাজলামো করে বললাম, “তাইতো তোমার কথা চিন্তা করছি।
ওপার থেকে কোন জবাব এলো না। তাতে আমি একটু ভয় পেয়ে জিজ্ঞেস করলাম, “রেগে গেলে নাকি, মজা করলাম বলে?”
শিমু আপু বললঃ না রে রাগ করিনি। বাট...
আমি বললামঃ বাট কি?
আপু বললঃ আসলে আমারও ঘুম আসছিলো না, তাই ভাবলাম তোর সাথে ফোন-এ একটু গল্প করি।
আমি বললামঃ এটা তো বেশ ভালো, এক তলা আর তিন তলা ফোন-এ গল্প করছে। একটা কাজ করি চলো, তুমি নিচের বারান্দাতে দাড়াও, আর আমি উপরের বারান্দাটাই দাড়াই তারপর গল্প করি, শুধু শুধু জিপি-কে টাকা দিয়ে কি হবে?
শিমু আপু হাসল, কিন্তু কোন রেসপণ্ড করলো না।
তারপর আপু হঠাৎ করে বললঃ এই ফাহিম, ছাদে যাবি?
আমি বললামঃ এখন?
আপু বললঃ হ্যাঁ, এখন।
আমি বললামঃ তোমার ভাইয়া, ভাবী যদি কিছু বলেন?
শিমু আপু বললঃ ওরা টের পাবে না। ঘুমিয়ে পড়েছে। তুই ছাদে চলে যা আমি একটু পরে আসছি।
এই বলে ফোনটা কেটে দিলো।
আমি খালি গায়ে ছিলাম বলে শর্টসের উপর একটা হাল্কা টি-শার্ট পরে ছাদে গিয়ে দরজা খুললাম। এর প্রায় ৭-৮ মিনিট পরে শিমু আপু এলো।
আমাদের ছাদটা বেশ বড়। বেশিরভাগটাই খোলা। একটা দিকে প্লাস্টিক শেড দিয়ে ঢাকা, বৃষ্টির সময় কাপড় শুকানোর জন্য। ওর নিচে কয়েকটা প্লাস্টিকের চেয়ার আর একটা মাদুর আছে বসার জন্য। আমি দুটো চেয়ার পেতে বসতেই শিমু আপু মাদুরে বসার জন্য বলল।
মাদুর পেতে পাশাপাশি বসলাম আমি আর শিমু আপু। প্রথমে কি কথা বলবো বুঝতে পারছিলাম না দেখে আকাশের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। হঠাৎ করে শিমু আপুকে জিজ্ঞেস করে ফেললাম, “তোমরা কি করতে এমন, যা আমরা কল্পনাও করতে পারবোনা কোনোদিন?”
শিমু আপু কোন কথা না বলে শুধু হেসে মুখটা অন্য দিকে ঘুরিয়ে নিলো। তারপর বলল, “কেন রে, তোর এতো জানার ইচ্ছা আমাদের দুষ্টুমির কথা? তা ছাড়া ওই গুলি একটু বেশি রঅ বা মেয়েদের পারসনাল যা আমি তোকে বলতে পারবো না।
আমি কিছুটা আন্দাজ করে চুপ করে গেলাম।
শিমু আপু বললঃ কি রে রাগ করলি? চুপ হয়ে গেলি কেন?
আমি বললামঃ না রাগ করিনি, এমনি চুপ।
আপু বললঃ শোন, তুই প্রেম করিস না কারো সাথে?
আমি বললামঃ না প্রেম করিনা, একবারে বিয়ে করবো, বাট তুমি বিয়ে করছ না কেন? তোমার তো এজ ক্রস করে যাচ্ছে।
শিমু আপু বললঃ আমি বিয়ে করবো না, আমার বিয়ে ভালো লাগে না। এইতো বেশ ভালো আছি, চাকরি করছি, ঘুরছি, ফিরছি, আনন্দ করছি, ভালোই তো আছি। যা যা চাই সবই তো আছে। তবে কেন শুধু শুধু বিয়ে করে রিলেশনে ঢুকতে যাবো?
আমি বললামঃ এই গুলা তো সব না, আরও কিছু নিডস আছে যেগুলো বিয়ে ছাড়া ফুলফিল করা যায় না।
শিমু আপু বললঃ ফাহিম একটা সিগারেট দিবি? অনেকদিন খাইনি। খুব ইচ্ছা করছে একটা খেতে।
আমি একটু অবাক হলাম, কিন্তু পকেট থেকে প্যাকেট টা বের করে দুটো সিগারেট নিয়ে একসাথে ধরিয়ে একটা শিমু আপুকে দিলাম।
শিমু আপু সিগারেটে লম্বা একটা টান দিয়ে আমার দিকে ফিরে বললঃ তুই কি মিন করতে চাইছিস আমি বুঝতে পারছি। তুই সেক্সের ব্যাপারটা বলতে চাইছিস, তাইনা?
আমি বললামঃ হ্যাঁ।
শিমু আপু বললঃ দেখ, আজ তুই অনেক বড় হয়েছিস, তাই তোকে বলছি। এখনকার সময়ে বিয়ে ছাড়াও এসব হয়, এইগুলো এখন ডাল ভাত। অনেকেই করে, কেউ বলে আবার কেউ বলেনা ডিফারেন্ট রিজনে।
কথাগুলো শুনে আমার সারা শরীরে কারেন্ট পাস করে গেলো মনে হল। আমি অবাক হয়ে শিমু আপুর দিকে তাকালাম। দেখলাম শিমু আপুর তাকানোর মধ্যে কেমন যেন একটা শুন্যতা আছে, যেন কিছু একটা অনেক খুজেও পায়না।
আমার আর শিমু আপুর মধ্যে বেশ কিছু গ্যাপ ছিল। আপু আরও কিছু সরে এসে গ্যাপ কমিয়ে দিয়ে আমার কাধে মাথা রাখল। আমার তখনও ব্যপারটা মাথার মধ্যে ঢুকছিলনা। নিজেকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না যে আমার পাশে এলাকার সবচেয়ে হট আর সুন্দরী মহিলা বসে আমার কাধে মাথা রেখে আছে।
শিমু আপু একটা হাল্কা কটনের প্রিন্ট করা নাইটি পরে আছে। একটু আগে মনে হয় গোছল করেছে স্যান্ডাল সোপ দিয়ে। তারই একটা মিষ্টি গন্ধ আসছে। শিমু আপুর শরীরের অনেকটা আমার শরীরের সাথে লেগে আছে। বুঝতে পারছি কোন ব্রা পরেনি। ব্রেস্টের কিছুটা আমার বাঁ হাতের সাথে টাচ করছিলো। ব্যাপারটা শিমু আপুও বুঝতে পারছিলো কিন্তু কিছু বলছিল না। আমি আরও একটু ভালো করে বুকটাকে ফিল করার জন্যেহাতটা ছড়িয়ে দিলাম। আমার হাতটা শিমু আপুর দুধের উপর দিয়ে ফোলা ভরাট বুকটা অনুভব করতে লাগলাম। আমার সাহস একটু একটু করে বাড়তে লাগলো। এবার হাতটা তুলে দিলাম ওর কাধের উপর। একটু টেনে আমার আরও কাছে নিয়ে এলাম শিমু আপুকে। দেখি তখনও কিছু বলল না।
কাধ থেকে হাত টা নিচে নামিয়ে নিয়ে হাত বুলাতে লাগলাম ওর সারা পিঠে। শিমু আপু ওর ডান হাত দিয়ে আমাকে জড়িয়ে আমার বুকের কাছে মুখটা লুকিয়ে ফেলল। পিঠে হাত বুলাতে বুলাতে বুঝতে পারলাম ওর শরীরটা কত নরম। আমরা ছাদের একটা দেয়ালে হেলান দিয়ে ছিলাম। শিমু আপু হঠাৎ করে আমার কোলের ওপর শুয়ে চোখটা বন্ধ করে ফেললো। তার বেশ কিছু আগে থেকেই আমার প্যান্টের মধ্যে ছোট বাবুটা মোবাইল টাওয়ারের মতো মাথা উঁচু করে ফুল সিগন্যাল দিচ্ছিল। তাই একটু ভয় হচ্ছিলো আপু টের পেয়ে যাবে বলে। ইনফ্যাকট শিমু আপু বুঝতে পারলো আমার অবস্থা, কিন্তু একবার শুধু আমার মুখের দিকে তাকিয়ে আবার চোখ বন্ধ করে শুয়ে রইলো।




আপুর নাইটিটা হাঁটুঅব্দি উঠে আছে, যা থেকে তার পার অনেক পোরশোন দেখা যাচ্ছিলো। কি সুন্দর ফর্সা পা দুটো, কোন লোম নেই। একটা পা অন্যটার উপর তুলে দেয়াতে যোনির জায়গাটায় নাইটিটা নিচের দিকে ঢুকে অনেক আকর্ষণীয় করে তুলেছিল।
আমি কি করবো বুঝতে পারছিলাম না, সব ব্যাপারটা এতো তাড়াতাড়ি ঘটে যাচ্ছিলো যে আমি একটু ঘোরের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম। আমি কোন কিছু না ভেবে নিচু হয়ে শিমু আপুকে একটা কিস করলাম গালে। এগিয়ে গেলাম রসালো ঠোঁটগুলোর দিকে, শুষে নিলাম সবটুকু রস। সেই অদ্ভুত অনুভুতির কথা বলে বোঝাতে পারবোনা। শিমু আপু চোখ বন্ধ করে উপভোগ করলো ফিলিংসটা আর তারপর আমার একটা হাত নিয়ে তার বড় আর নরম কোমল দুধের উপর রাখল।
মেয়েদের ব্রেস্ট কি অদ্ভুত একটা জিনিষ, বুকের উপর দুটো চর্বি যেটা ওদের রূপ ফুটিয়ে তুলে সেক্সি করে তোলে। মানুষের শরীরের অনেক জায়গাই চর্বি থাকে কিন্তু বুকের উপর ওই চর্বি দুটোতে হাত দিয়ে যত ভালো লাগে আর অন্য কোথাও তার তুলনা নেই। তার উপর ঠিক মাঝখানে বাদামি একটু ফুলে থাকা নিপল দুটো ব্যাপারটাকে আরও আকর্ষণীয় আর লোভনীয় করে তোলে।
শিমু আপুর নাইটির উপরের দিকে দুটো হুক খুলে দিয়ে আমি ওর নগ্ন দুধে হাত দিলাম। উফফ... কি সুন্দর স্বর্গীয় অনুভুতি... হঠাৎ কিছু পেয়ে যাওয়ার আনন্দে মন ভরে গেলো। কি সুন্দর রাউন্ড শেপড দুটো দুধ তাতে বোঁটাগুলো বাদামী। আমি তাকিয়ে থাকতে পারলাম না বেশিক্ষন। মুখ নামিয়ে দিলাম বোটার উপর। মুখ ডুবিয়ে দিয়ে চুষতে লাগলাম একটা আর অন্যটা হাতে নিয়ে খেলা করতে লাগলাম। শিমু আপু চোখ বন্ধ করে উপভোগ করছিলো আমার খেলা।
আমি অন্য হাত দিয়ে শিমু আপুর নাইটিটা কোমর পর্যন্ত তুলে দিয়ে দেখলাম ভিতরে একটা পাতলা ডিজাইনের প্যান্টি পরে আছে যার অনেকটাই কাটা। হাতটা নিয়ে গেলাম ওর দুই পায়ের ফাঁকে। দেখি একদম ভিজে লেপটে আছে। প্যান্টির পাশ দিয়ে একটু ফাক করে একটা আঙ্গুল ঢুকিয়ে শিমু আপুর গুদে বিলি কাটতে লাগলাম। শিমু আপুর শরীরটা কেপে উঠলো একবার। শিমু আপু আমাকে টেনে নিজের পাশে শুইয়ে দিয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার ঠোঁটে খুব জোরে একটা চুমু খেলো।
আমি শিমু আপুর শরীর থেকে নাইটির বাধন খুলে মুক্ত করে নিলাম। এই খোলা আকাশের নিচে সবার কামনার আরাধ্য শিমু আপু এখন শুধু প্যান্টি পরে আমার পাশে শুয়ে আছে। শিমু আমার টি-শার্ট খোলার চেষ্টা করতেই আমি নিজেই খুলে দিলাম। ও আমার লোমশ বুকে চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিলো ওর ভালোবাসার ছাপ।
আমি আস্তে আস্তে ওর প্যান্টিটা খুলে দিলাম। এবার আমার স্বপ্নের অপ্সরা আমার সামনে পুরো উলঙ্গ আমাকে আহব্বান করছে। আমিও আমার শর্টস খুলে ফেললাম।
খুব ইচ্ছা করছিলো শিমু আপুকে বলি আমার সোনাটা চুষে দিতে। কিন্তু আমাকে অবাক করে নিজেই এগিয়ে এসে কোমল হাতে সোনাটা ধরে মুখে ভরে দিয়ে চুষতে লাগলো একদম এক্সপার্ট মহিলার মতো। এটা আমার প্রথম বার, তাই শিমু আপুর নরম কোমল ঠোটের ব্লোজবে আমি শিহরিত হয়ে উঠছিলাম। আমার মাল ধরে রাখতেও অনেক কষ্ট হচ্ছিলো। বেশ কিছুক্ষন চলার পর আর পারছিলাম না। শিমু আপু আমার অবস্থা বুঝতে পেরে মুখ থেকে বাড়াটা বের করে দিলো। আর সাথে সাথে আমার সব বীর্য গিয়ে পড়লো ওর গলা বুক আর পেটের উপর।
মাল বের হয়ে যাবার পর হঠাৎ বাড়াটা কেমন যেন নেতিয়ে যেতে লাগতেই শিমু আপু এক্সপেরিয়েন্সড মহিলার মতো সোনাটা ঝাকাতে ঝাকাতে ওর গুদটা চুষে দিতে বলল। আমার ব্যাপারটা একটু কেমন লাগলো কিন্তু বাধ্য ছেলের মতো রাজি হয়ে গেলাম।
গুদে যৌন রস আর প্রস্রাব মেশানো নোন্তা স্বাদটা খুব একটা খারাপ লাগলো না। শিমু আপুর গুদ চুষতে চুষতে আমার বারাটাও শক্ত হয়ে উঠলো। শিমু আপু এবার আর সময় নষ্ট না করে গাইড করে আমার বাড়াটা ঢুকিয়ে নিলো ওর গুদের মধ্যে। ওফ সেকি ফিলিংস......! আমি যেন স্বর্গে প্রবেশ করছি।
টাইট গুদের মধ্যে দিয়ে আমার শক্ত বাড়াটা যখন ঢুকছিল তখন আমার পেটের নিচের দিকে শিরশির করা একটা ফিলিংস হতে শুরু করলো। রসে ভিজে শিমু আপুর গুদটা একদম পিচ্ছিল হয়ে ছিল তাই একচান্সেই বাড়াটা অর্ধেক ঢুকে গেলো। আমি জোরে একটা ঠাপ দিতেই পুরোটা ঢুকে গেলো। শিমু আপু ব্যাথায় ছটফট করে উঠলো। আমি কোমরটা উঠানামা করে শিমু আপুর সাথে আদিম খেলায় মেতে উঠলাম। আপু দুই হাত দিয়ে আমার পাছাটা চেপেধরে আমার ঠাপগুলো আরও ভালভাবে উপভোগ করতে লাগলো। আমি শিমু আপুকে চোদার গতি বাড়িয়ে দিলাম। আপু দুহাত দিয়ে আমার গলাটা জড়িয়ে ধরে আমার ঠোঁট ওর ঠোটের মধ্যে নিয়ে চুষতে লাগলো। আপু কোমর তুলে তুলে আমার ঠাপের সাথে ছন্দ মিলিয়ে নিচের দিক থেকে ঠাপ দিতে লাগলো।
শিমু আপু দুপা দিয়ে আমার কোমর শক্ত করে জড়িয়ে ধরে গড়িয়ে আমাকে নিচে ফেলে ওর গুদের মধ্যে বাড়া ঢুকানো অবস্থায় আমার বুকের উপর উঠে গেলো। এরপর ওর দুই হাত আমার বুকের দুই পাশে  রেখে কোমর দোলাতে দোলাতে আমাকে চুদতে লাগলো। আমি দুই হাতে শিমু আপুর দুই দুধ ধরে জোরে জোরে টিপতে লাগলাম আর আঙ্গুল দিয়ে দুই বোঁটা মোচড়াতে লাগলাম।
আমি হঠাৎ চোখে অন্ধকার দেখলাম। একটা তীব্র ভালো লাগার স্বর্গীয় অনুভুতি আমাকে আচ্ছন্ন করে ফেললো। আপুর দুধে আমার হাতের জোর চাপে ব্যাথায় কোকীয়ে উঠলো। আমি আমার সব বীর্য শিমু আপুর গোপন গহব্বরে ঢেলে দিয়ে সুখের তীব্রতায় পাগল হয়ে গেলাম। আপুও তার দুহাতের ভার ছেড়ে দিয়ে আমার বুকের উপর শুয়ে পড়ে আমার ঠোঁট প্রচণ্ড ভাবে কামড়ে ধরলো। আমার সোনাটা যেন রসের ফোয়ারায় গোসল করলো।
ভীষণ ক্লান্ত হয়ে দুজন এভাবে দুজনকে জড়িয়ে ধরে কতক্ষণ শুয়ে ছিলাম জানিনা। হঠাৎ করে টাইমের ব্যাপারটা মাথায় এলো। মোবাইল-এ দেখলাম রাত প্রায় আড়াইটা বাজে। এতো রাতে আমরা ছাদে খোলা আকাশের নিচে আদম-হাওয়ার মতো উলঙ্গ হয়ে শুয়ে আছি। বেশ ভালো লাগছিলো ভেবে।
প্রথম নীরবতা ভাঙলো শিমু আপুর কথায়। বললো, “যা নিচে যা, অনেক রাত হয়েছে, আমিও যাই, নয়তো ভাইয়া ভাবী টের পেয়ে যাবে।কথাটা বলে শিমু আপু নাইটিটা পরে নিলো। আমিও আমার শর্টস আর টি-শার্ট পরে নিলাম। ছাদের দরজাটা লাগিয়ে যাবার আগে শিমু আপুকে জড়িয়ে ধরে আবার একবার আদর করলাম।
রুমে এসে বেশ কিছুক্ষন চুপচাপ শুয়ে শুয়ে ভাবতে থাকলাম কিছুক্ষন আগের অনুভূতিগুলো। ভাবতে ভাবতে কখন ঘুমিয়ে পড়লাম জানিনা, ঘুম ভাঙলো কলিং বেলের শব্দে। দরজা খুলে দেখি শিমু আপু দাড়িয়ে আছে চায়ের কাপ হাতে। একটা চুমুর সাথে গুডমর্নিং উইশ করে আমাকে দুপুরে ওদের ওখানে খেতে যেতে বললো। এইভাবে বাবা মার অনুপস্থিতিতে আমাদের সম্পর্কটা ভালোই চলছিলো। এরপর বাবা মা এসে যাওয়াতে ফ্রিকোয়েন্সীটা কমে যায়।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন